সহসাই দেশের বাজারে যোগ হবে শেরপুরের ৩ লাখ মেট্রিক টন সবজি

সুজন সেন, নিজস্ব প্রতিবেদক, শেরপুর
বাংলারচিঠিডটকম

খাদ্য উদ্বৃত্তের জেলা হিসাবে পরিচিত শেরপুর। কিন্তু গেল বন্যার কারণে এ জেলায় সবজি উৎপাদন মারাত্মকভাবে ব্যহত হয়। চাষিরা জানান, নানা বাধা পেরিয়ে সবজি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক রাখতে তারা মাঠে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন। অন্যদিকে স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, আগামী ২০ থেকে ২৫ দিনের মধ্যে দেশের বাজারে পর্যায়ক্রমে যোগ হবে এই জেলার ২ লাখ ৯৯ হাজার ৬৭০ মেট্রিক টন সবজি।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, এবার রবি মৌসুমে শেরপুর সদর উপজেলাসহ নকলা, নালিতাবাড়ী, ঝিনাইগাতী ও শ্রীবরদীর ৮ হাজার ৫৬২ হেক্টর জমিতে সবজি আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ৯২০ হেক্টর জমিতে বেগুন আবাদ করা হয়েছে। যার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৬৭ হাজার ২০০ মে. টন। টমেটো ৭৮০ হেক্টরে ২১ হাজার ৮৩ মে. টন, সীম ১ হাজার ২৯০ হেক্টরে ১৭ হাজার ৯০৫ মে. টন, ফুলকপি ৩৭৫ হেক্টরে ৯ হাজার ৭৩৯ মে. টন, বাঁধাকপি ৩৬৭ হেক্টরে ১৪ হাজার ৮৬৪ মে. টন, মুলা ৫৮৫ হেক্টরে ১৩ হাজার ৬৪২ মে. টন, লাউ ৮৫০ হেক্টরে ২৯ হাজার ৩০৮ মে. টন, চাল কুমড়া ২৯৭ হেক্টরে ৮ হাজার ১২৫ মে. টন, মিষ্টি কুমড়া ৪০০ হেক্টরে ১৪ হাজার ৮৭২ মে. টন, পটল ১০৫ হেক্টরে ২১ হাজার ৬৫ মে. টন, বরবটি ৬২ হেক্টরে ৯৫৫ মে. টন, শশা ৬১৫ হেক্টরে ১০ হাজার ৩৯৪ মে. টন, ঝিঙ্গা ২৩৭ হেক্টরে ৩ হাজার ৪ মে. টন, ডাটা ৪২৫ হেক্টরে ১১ হাজার ৩০০ মে. টন, গোল আলু ৪৯৫০ হেক্টরে ১ লাখ ৩ হাজার ৭০ মে. টন, কাকরোল ৭২ হেক্টরে ৭৩০ মে. টন, গাজর ১৬১ হেক্টরে ২ হাজার ৮৭২ মে. টন, লাল শাক ২৮৮ হেক্টরে ৩ হাজার ৫৮৬ মে. টন, চিচিঙ্গা ১২৭ হেক্টরে ২ হাজার ৬২৮ মে. টন, পুঁই শাক ৫৫ হেক্টরে ৩১০ মে. টন, গিমাকলমি ২৮ হেক্টরে ২২২ মে. টন, পালংশাক ৮৪ হেক্টরে ৩৪৫ মে. টন, ধনিয়াপাতা ১৫ হেক্টরে ১৪ হাজার ৩১ মে. টন, খিরা ১ হেক্টরে ৫ মে. টন, করলা ২২৫ হেক্টরে ৪ হাজার ৯৫৫ মে. টন, মটরশুটি ৩৬৭ হেক্টরে ১৪ হাজার ৮৬৪ মে. টন, পেঁপে ৩০ হেক্টরে ৭১০ মে. টন, ধুন্দল ৪৫ হেক্টরে ৩০০ মে. টন, সজিনা ১০ হেক্টরে ৮৮ মে. টন, মুখী কচু ১৮০ হেক্টরে ৩ হাজার ৬৮০ মে. টন, গাছ আলু ১৯ হেক্টরে ১৪০ মে. টন, ওল ৩৭ হেক্টরে ৪৬৩ মে. টন, পঞ্চমুখী ২৫ হেক্টরে ৫৬৫ মে. টন, পানি কচু ১২৫ হেক্টরে ২ হাজার ৬৩০ মে. টন, মরিচ (কাঁচা) ৪৪৫ হেক্টরে ৩ হাজার ৫৬০ মে. টন, মরিচ (শুকনা) ৫১৫ হেক্টরে ১ হাজার ৩০ মে. টন, পেঁয়াজ ৬৭০ হেক্টরে ৬ হাজার ৬৯৮ মে. টন, রসুন ৩০০ হেক্টরে ১ হাজার ৫০০ মে. টন, আদা ৪৪০ হেক্টরে ৭ ২০ মে. টন, হলুদ ৭৬৪ হেক্টরে ১৪ হাজার ৯২০ মে. টন, আন্যান্য ১০২ হেক্টরে ২ হাজার মে. টন সবজি উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

শ্রীবরদীর চৈতাজানি গ্রামের কৃষক আমিনুল ইসলাম ও উমেদ আলী বলেন, প্রায় প্রতি বছর অক্টোবর মাসের প্রথম সপ্তাহে আগাম সবজি উৎপাদন করে স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে ঢাকাসহ নানা জেলায় শেরপুরের সবজি সরবরাহ হতো। কিন্তু গেল বন্যার কারণে তাদের প্রস্তুতকৃত জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরে বন্যা পরবর্তী সময়ে তারা ঘুরে দাঁড়াতে চেষ্টা করলেও সবজি ক্ষেতে দেখা দেয় পোকা আর ছত্রাকের আক্রমণ। যে কারণে নির্দিষ্ট সময়ে বাজারে পর্যাপ্ত পরিমাণ শীতকালিন সবজি সরবরাহে ব্যর্থ হন তারা। এ সময় স্থানীয়দের নির্ভর করতে হয় জেলার সীমান্তবর্তী তিন উপজেলার গারো পাহাড়ে উৎপাদিত সবজির উপর।

সদর উপজেলার কৃষক শাহজাহান, খোকন মিয়া, রুবেল ফকির আলীসহ আরো অনেকেই বলেন, বন্যার কারণে তারা পিছিয়ে পড়লেও উৎপাদন লক্ষমাত্রা ঠিক রাখতে তারা কাজ করে যাচ্ছেন। সহসাই তারা ফুলকপি, বাঁধাকপি, লাউ, শশা, করলা, শিম, চিচিঙ্গা, বরবরটি, বেগুনসহ ৩১ প্রকারের শাক সবজি বাজারজাত করতে পারবেন।

অন্যদিকে স্থানীয় পাইকার রজব আলী বলেন, হঠাৎ করে সবজির বাজার চড়া হয়ে যাওয়ায় ব্যবসায়ীকভাবে তিনি ক্ষতির শিকার হয়েছেন।

আরেক পাইকার মজিবর মিয়া বলেন, প্রতি বছর শীতকালিন সবজি বিক্রি করে মোটামোটি ভালই লাভ হতো। কিন্তু এবার তার ১ লাখ ১৭ হাজার টাকা ক্ষতি হয়েছে। বন্যার কারণে সবজি সরবরাহ স্বাভাবিক পর্যায়ে না থাকায় তিনি ওই ক্ষতির শিকার হন বলে জানান।

শ্রীবরদী উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা হুমায়ুন দিলদার বলেন, আগামী ২০ থেকে ২৫ দিনের মধ্যে দেশের বাজারে পর্যায়ক্রমে যোগ হবে এই জেলার ২ লাখ ৯৯ হাজার ৬৭০ মেট্রিক টন সবজি। তখন সরবরাহ স্বাভাবিক হলে দাম সহনীয় পর্যায়ে চলে আসবে।

তিনি জানান, এবার বন্যার কারণে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় অনেকেই সবজি আবাদ বাদ দিয়ে সরিষা, ডাল, তেল ও মসলা জাতীয় পণ্য উৎপাদনের দিকে ঝুঁকে পড়েছেন।

Views 50 ফেসবুকে শেয়ার করুন!
sarkar furniture Ad
Green House Ad