জামালপুরে ২১৫টি পূজামণ্ডপে দুর্গোৎসব

দয়াময়ী মন্দিরের দুর্গাপূজামণ্ডপ। ছবি : বাংলারচিঠি ডটকম

নিজস্ব প্রতিবেদক
জামালপুর, বাংলারচিঠি ডটকম

সারা দেশের ন্যায় জামালপুর জেলাতেও যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য ও উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপিত হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গোৎসব। এবার জেলা সদরসহ সাতটি উপজেলায় ২১৫টি পূজামণ্ডপে উদযাপিত হচ্ছে এই দুর্গোৎসব। পাঁচদিনব্যাপী দুর্গোৎসবের দ্বিতীয় দিনে ১৫ অক্টোবর জেলার সবগুলো পূজামণ্ডপে অনুষ্ঠিত হয়েছে মহাসপ্তমী পূজা।

জানা গেছে, এবার জেলার সাতটি উপজেলায় ২১৫টি পূজামণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মধ্যে জামালপুর সদরে ৬৪টি, মেলান্দহে ২১, মাদারগঞ্জে ২৬, ইসলামপুরে ২১, দেওয়ানগঞ্জে ২৫, বকশীগঞ্জে ১৪ এবং সরিষাবাড়ী উপজেলায় ৪৪টি পূজামণ্ডপ স্থাপিত হয়েছে। পূজামণ্ডপগুলো সাজানো হয়েছে বর্ণিল আলোকসজ্জায়। মণ্ডপে মণ্ডপে পূজা উদযাপনে হিন্দু পুণ্যার্থীদের সপরিবারে ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। এ ছাড়া বিকেল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত পূজা দেখতে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষদের পরিবার পরিজন নিয়ে মণ্ডপগুলোতে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায়। জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন পূজা মণ্ডপগুলোয় নিয়েছে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

জামালপুর শহরের দয়াময়ী মন্দির পরিচালনা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সিদ্ধার্থ শংকর রায় বাংলারচিঠি ডটকমকে বলেন, ‘সারা জেলায় শান্তিপূর্ণভাবে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। পূজামণ্ডপগুলোর কমিটির সামর্থের পাশাপাশি সরকারি ও ব্যক্তিপর্যায়ে কিছু অনুদানের সহায়তায় পূজামণ্ডপগুলো স্থাপিত হয়েছে। জেলা প্রশাসন জেলার প্রতিটি পূজামণ্ডপের জন্য ৫০০ কেজি করে খয়রাতির চাল বরাদ্দ দিয়েছে।’

জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীর পূজার নিরাপত্তা প্রসঙ্গে বাংলারচিঠি ডটকমকে বলেন, ‘এবার দুর্গাপূজা উদযাপন সার্বজনীন ও নির্বিঘ্ন করতে জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও জেলা পুলিশ সার্বিক সহায়তা ও নিরাপত্তাজনিত নজরদারি করছে। প্রতিটি উপজেলায় একজন করে নির্বাহী হাকিমের নেতৃত্বে পুলিশসহ একটি করে ভ্রাম্যমাণ দল পূজামণ্ডপের নিরাপত্তায় কাজ করছে। এ ছাড়াও প্রতিটি পূজামণ্ডপে সার্বক্ষণিক পুলিশ ও আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন।’

Views 54   ফেসবুকে শেয়ার করুন!
সর্বশেষ
sarkar furniture Ad
Green House Ad