সেরা দল সব সময় বড় সাফল্য পায় না : মড্রিচ

বাংলার চিঠি ডটকম ডেস্ক॥
১৫ জুলাই রাতে শেষ হওয়া রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনালে ফ্রান্সের কাছে ৪-২ গোলে হেরে শিরোপার স্বাদ থেকে বঞ্চিত হয় ক্রোয়েশিয়া। পুরো টুর্নামেন্টে দুর্দান্ত পারফরমেন্সেও করে শিরোপা জিততে না পারার আক্ষেপ রয়েছে বিশ্বকাপের গোল্ডেন বল জয় করা ক্রোয়েশিয়ার অধিনায়ক লুকা মড্রিচের। তিনি বলেন, ‘এটি সত্যিই হতাশার। শিরোপার এত কাছে এসে তা জিততে না পারাটা সত্যিই দুঃখজনক। আসলে সেরা দল সব সময়ে বড় সাফল্য পায় না।’

প্রথমবারের মত ফাইনালে উঠেও ফ্রান্সের কাছে হেরে বিশ্বকাপ শিরোপা বঞ্চিত হয়েছে ক্রোয়েশিয়া। তবে পারফরমেন্স দিয়ে পুরো ফুটবল বিশ্বের হৃদয় জয় করেছে ক্রোয়েশিয়া। বাহ্বা কুড়িয়ে ফুটবলপ্রেমিদের। তথাপি বিশ্বকাপের সবচেয়ে সেরা সাফল্য অর্জন করতে পারেনি ক্রোয়েশিয়া। এতে হতাশায় মুষড়ে পড়েছেন শিরোপা জয়ের স্বপ্নে বিভোর ক্রোয়েশিয়া দলের অধিনায়ক মড্রিচ। তিনি বলেন, ‘আমরা শিরোপা জয় ছাড়া অন্য কিছুই ভাবতে পারিনি। ক্রোয়েশিয়ার হয়ে শিরোপা জিততে চেয়েছিলাম। আমাদের স্বপ্ন পূরণ হলো না। আসলে ফাইনাল হারের স্মৃতি কোনভাবেই ভুলতে পারছি না।’

গোল্ডেন বল জিতলেও ফাইনাল ম্যাচের হার কষ্ট দিচ্ছে মড্রিচকে। তারপরও গোল্ডেন বল জিতে গর্বিত তিনি, ‘গোল্ডেন বল জিতে আমি সত্যিই গর্বিত। বিশ্বকাপ শুরুর আগে গোল্ডেন বল নিয়ে চিন্তাও করিনি। এমনকি শিরোপা নিয়েও ভাবিনি। তবে দলের খেলোয়াড়রা যেভাবে খেলেছে, তাতে শিরোপার অন্যতম দাবীদার ছিলাম আমরাই। কিন্তু ভাগ্য আমাদের পক্ষে কথা বলেনি।’

কোচ জ্লাটকা ডেলিচের মত রেফারির সমালোচনা করেছেন মড্রিচও। তিনি বলেন, ‘টিভি রিপ্লে দেখে, যেভাবে পেনাল্টি দেওয়া হয়েছে তাতে আমরা সবাই অবাক হয়েছি। ওই পেনাল্টিটি না দিলেও হতো। আসলে ওই পেনাল্টিই ম্যাচের মোড় ঘুড়িয়ে দিয়েছে।’

তারপরও পুরো আসরে দল যেভাবে খেলেছে তাতে গর্বিত মড্রিচ, এমনটা জানাতে ভুলে যাননি ক্রোয়েশিয়ার দলপতি, ‘আমরা ভালো খেলেছি। সেরা পারফরমেন্স করে ফাইনাল খেলেছি। তবে ফাইনালে ভাগ্য আমাদের সাথে ছিল না। কারণ আমরা দু’টি গোল উপহার দিয়েছি ফ্রান্সকে। এতেই বোঝা যায় ভাগ্য আমাদের সাথে ছিলো না। তারপরও আমরা যা করেছি, যেভাবে খেলেছি তাতে আমাদের গর্ব করা উচিত।’বাসস।

Views 45   ফেসবুকে শেয়ার করুন!
সর্বশেষ
sarkar furniture Ad
Green House Ad

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *