দুর্যোগ ও দুঃসময়ে সরকার দুর্গতদের পাশে রয়েছে : ত্রাণ বিতরণ ও বাঁধ পরিদর্শনে ধর্মমন্ত্রী

সাপধরী কাশারী ডোবা বাঁধ কাম রাস্তা পরিদর্শন করেন ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান। ছবি: বাংলারচিঠিডটকম

লিয়াকত হোসাইন লায়ন
নিজস্ব প্রতিবেদক, ইসলামপুর, বাংলারচিঠিডটকম

ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান বলেছেন, বন্যার্তদের পাশে থাকার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন। বন্যার্তদের জন্য সরকারে সর্বাত্মক চেষ্টা করছে। একজন বানভাসি মানুষও যেন না খেয়ে দিন না কাটায় সেজন্য সকল নেতাকর্মী ও জনপ্রতিনিধিদের সাথে নিয়ে তাদের পাশে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। গরিব অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফুটানোর জন্য শেখ হাসিনা বিনিদ্র ও অক্লান্তভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। চলমান বন্যা যতদিন থাকবে, শুকনা খাবারসহ ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম চলমান থাকবে।

মন্ত্রী জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলায় ১০ জুলাই বুধবার উপজেলার চিনাডুলী ইউনিয়নের বীর নন্দনের পাড়া, চর নন্দনের পাড়া, বামনা, গিলাবাড়ী, গুঠাইল, আমতলী এলাকায় ৪০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণের চাল ও আওয়ামী লীগের আয়োজনে ২০০ পরিবারের মাঝে শুকনা খাবার, ইসলামি রিলিফ আয়োজনে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে হাইজিং কিটস ও নগদ অর্থ এবং সাপধরী কাশারী ডোবা বাঁধ কাম রাস্তা পরিদর্শন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

বন্যার্তদের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ করেন ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান। ছবি: বাংলারচিঠিডটকম

তিনি বলেন, জাতির পিতা দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফুটাতে চেয়েছেন। আওয়ামী লীগ সরকার সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। মানুষের মৌলিক চাহিদা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা ও শিক্ষা। যা যা দরকার তা সরকার করে যাচ্ছে। দেশে গণতন্ত্র আছে বলেই এ দুর্যোগের সময় সরকার মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে।

এসময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আইনজীবী আব্দুস সালাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সিরাজুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল খালেক আকন্দ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানা যুঁথী, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেহেদী হাসান টিটু, অধ্যক্ষ জামাল আবু নাছের চৌধুরী চার্লেস, আব্দুর রাজ্জাক লাল মিয়া, ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।