লটারো মার্টিনজের শেষ মুহূর্তের গোলে চিলিকে হারিয়ে কোপার কোয়ার্টারে আর্জেন্টিনা

বাংলারচিঠিডটকম ডেস্ক:

বদলী খেলোয়াড় লটারো মার্টিনেজের ৮৮ মিনিটের গোলে চিলিকে ১-০ ব্যবধানে পরাজিত করে কোপা আমেরিকার কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে আর্জেন্টিনা।

লিওনেল মেসি প্রথমার্ধে পোস্টে বল না লাগালে জয়ের ব্যবধান হয়তো বাড়তে পারতো। এই ম্যাচে জয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের সহযোগিতা করেছেন গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ। তবে শেষ পর্যন্ত নিউ জার্সির মেটলাইফ স্টেডিয়ামে ৮২ হাজার সমর্থকদের সামনে উৎসবের ক্ষন উপহার দেন লটারো।

ম্যাচের শুরু থেকেই ১৫ বারের কোপা আমেরিকা চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা প্রতিপক্ষ চিলির উপর চেপে বসে। কিন্তু একের পর এক বাজে ফিনিশিংয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের হতাশ হতে হয়। চিলির ৪১ বছর বয়সী গোলরক্ষক ক্লডিও ব্র্যাভোর উজ্জীবিত পারফরমেন্সও আর্জেন্টিনাকে এগিয়ে যেতে বাঁধা দিয়েছে।

এই ভেন্যুতেই ২০২৬ ফিফা বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে। কাল স্টেডিয়ামটি আর্জেন্টিনার হোম ভেন্যুতে পরিনত হয়েছিল। প্রিয় দলকে সমর্থন দিতে আকাশী-নীল জার্সি পরিহিত আর্জেন্টাইন সমর্থকের অভাব ছিলনা।

২২ মিনিটে আক্রমণভাগে মেসির স্ট্রাইকিং পার্টনার জুলিয়ান আলভারেজের শট রুখে দেন ব্র্যাভো। নিকোলাস গঞ্জালেজের প্রথম সুযোগের শটটি বাইলাইন থেকে ক্লিয়ার হয়। মেসিকে আটকে রাখার ক্ষেত্রে চিলির রক্ষনভাগ বেশ সাহসিকতা দেখিয়েছে। এতে তারা বেশীরভাগ সময় সফলও ছিল। সারাক্ষণই মেসিকে ঘিড়ে রেখেছিল তিনজন ডিফেন্ডার। কিন্তু এর মধ্যে থেকেও ৩৬ মিনিটে অল্পের জন্য গোলের দেখা পাননি আটবারের ব্যালন ডি’অর বিজয়ী মেসি। ২৫ গজ থেকে তার শট পোস্টে লেগে ফেরত আসে।

২০১৫ ও ২০১৬ সালে দুইবার কোপা আমেরিকা ফাইনালে চিলি আর্জেন্টিনাকে শিরোপা জিততে দেয়নি। এর মধ্যে ২০১৬ সালে এই মেটলাইফ স্টেডিয়ামে হারের পর মেসি জাতীয় দল থেকে সড়ে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু যখনই চিলি জেদী ভাব প্রমাণ করে তখনই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা ঘুড়ে দাঁড়নোর পথ ঠিকই খুঁজে পায়। গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠা আর্জেন্টিনা দ্বিতীয়ার্ধে চিলি উপর চেপে বসে। কিন্তু এবারও ব্রাভো একাই আর্জেন্টিনার আক্রমণ প্রতিহত করতে সচেষ্ট হয়ে ওঠে। নাহুয়েল মোলিনাকে পোস্টের খুব কাছে থেকে বল জালে জড়ানে দেননি ব্রাভো। এরপর নিকোলাস গঞ্জালেজকেও হতাশ করেন। কাউন্টার এ্যাটাকা থেকে চিলিও মাঝে মাঝে আক্রমন চালিয়েছে। তারই ধারাবাহিকতা রডরিগো এজেভেরিয়াকে রুখে দেন আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক মার্টিনেজ। ৮৮ মিনিটে মেসির ইন-সুইং কর্ণার থেকে মার্টিনেজ জয়সূচক গোলটি করেন। ভিএআর দীর্ঘ সময় অফসাইড পজিশন পরীক্ষা করে শেষ পর্যন্ত আর্জেন্টিনাকে গোল উপহার দেন। ম্যাচর শেষ ভাগে এ্যাঞ্জেল ডি মারিয়ার এ্যাসিস্টে লটারো ব্যবধান দ্বিগুন করার সুযোগ হাতছাড়া করেন।

এ-গ্রুপের আরেক ম্যাচে জোনাথন ডেভিডের একমাত্র গোলে ১০ জনের পেরুকে হারিয়ে লড়াইয়ে ফিরেছে কানাডা। এই জয়ে চিলিকে দুই পয়েন্ট পিছনে ফেলে টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে কানাডা। প্রথম ম্যাচে তারা আর্জেন্টিনার কাছে ২-০ গোলে পরাজিত হয়েছিল।