কোটি কোটি টাকা আত্মসাত, ন্যাশনাল ব্যাংক জামালপুরের সাবেক ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে দুদকে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলারচিঠিডটকম : ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড জামালপুর শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক সৈয়দ জহুর আহমেদের বিরুদ্ধে ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতির মাধ্যমে ব্যাংকের তহবিল তছরুপ ও বিভিন্ন গ্রাহকের হিসাব থেকে ৩ কোটি ২৮ লাখ ৩৯ হাজার ৫৫ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক মলয় কুমার সাহা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

চাঞ্চল্যকর এই অর্থ জ্বালিয়াতির কাজে সৈয়দ জহুর আহমেদ তার স্ত্রী উম্মে মরিয়ম ফেরদৌসকেও ব্যবহার করেছেন বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে। ২৮ সেপ্টেম্বর এই মামলাটি দায়ের হয়।

দুদক সূত্র জানায়, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড জামালপুর শাখার এক্সিকিউটিভ অফিসার ও সাবেক ব্যবস্থাপক সৈয়দ জহুর আহমেদ মুন্সিগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ী থানার কামারখাড়া গ্রামের আব্দুল হাইয়ের ছেলে। তার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর হলো- ৭৩২০৩০৮৭৭৩। তিনি বিগত ২০১০ সালের ২১ নভেম্বর থেকে চলতি বছরের ১ মার্চ পর্যন্ত ন্যাশনাল ব্যাংক জামালপুর শাখায় কর্মরত ছিলেন। অভিযোগ রয়েছে, ওই সময়ের মধ্যে তিনি ক্রেডিট কার্ড এবং আইবিটিএ সফটওয়্যার সম্পর্কিত যাবতীয় কাজ করার দায়িত্ব পালন করেন। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে তিনি অপরাধমূলক বিশ্বাসভঙ্গ করে প্রতারণামূলকভাবে তার ও তার স্ত্রী উম্মে মরিয়ম ফেরদৌসের নামে ন্যাশনাল ব্যাংক থেকে ইস্যুকৃত চারটি ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে মালামাল ক্রয় বাবদ ও নগদ উত্তোলিত টাকা (ঋণ) নিজে পরিশোধ করেননি।

একই সাথে তিনি বিভিন্ন ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারী ও গ্রাহকের নামে ইস্যুকৃত বিভিন্ন কার্ডের বিপরীতে জমাকৃত অর্থ সঠিক সময়ে কার্ডের হিসাবে ব্যাংকে জমা না করে ব্যাংকের নিজস্ব ১২৮১০ নম্বর হিসাব থেকে ডেবিট (বিকলন) করে মোট ৪৫ জন ব্যক্তির নামে ইস্যুকৃত বিভিন্ন কার্ড হিসাবের বিপরীতে জমা দেওয়া ৩ কোটি ২৮ লাখ ৩৯ হাজার ৫৫ টাকা আত্মসাত করেছেন। এতে তিনি ফৌজদারি দণ্ডবিধি ৪০৯/৪২০ ও ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন বলে প্রতীয়মান হয়েছে। এই অভিযোগের ভিত্তিতে সৈয়দ জহুর আহমেদকে আসামি করে দুদকে একটি মামলা দায়ের হয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর থেকে এটিই প্রথম মামলা দায়ের হলো বলে দুদক নিশ্চিত করেছে।

sarkar furniture Ad
Green House Ad