লঞ্চে আগুনের ঘটনায় আরও এক জনের মৃত্যু

বাংলারচিঠিডটকম ডেস্ক ❑ ঝালকাঠিতে লঞ্চে আগুনের ঘটনায় রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও এক জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া ঘটনাস্থল থেকে ৩৭ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় একজন মারা গেছে। এ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে ৩৯ জন হয়েছে।

বাসস’র ঢাকা মেডিকেল সংবাদদাতা জানান, ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে ‘এমভি অভিযান-১০’ লঞ্চে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় দগ্ধ যাত্রী হাবিব খান (৪৫) রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। তার বাড়ি বরগুনা জেলার সদর উপজেলার তেঁতুলবাড়িয়া গ্রামে।

শুক্রবার দিবাগত রাত পৌনে ১২টার দিকে রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

আজ ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ওসি) মো, বাচচু মিয়া এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস, এম আইয়ুব হোসেন মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে ‘এমভি অভিযান-১০’ লঞ্চে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় মৃত হাবিবের স্বজনের সঙ্গে কথা হয়েছে। তিনি আগে থেকেই অসুস্থ ছিলেন। তিনি লিভার সিরোসিসে ভুগছিলেন। ঘটনার সময় নদীতে লাফিয়ে পরে বুকে আঘাত পেয়েছিলেন।

নিহত হাবিব খানের স্ত্রী সায়েরা বেগম জানান হাবিব গ্রামে মুদি দোকান করতেন। এক সপ্তাহ আগে স্বামী-স্ত্রী দু’জন টঙ্গিতে ছেলে শাহিনের বাসায় বেড়াতে যান। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গ্রামের বাড়ি যাওয়ার উদ্দেশে লঞ্চে ওঠেন। রাতে লঞ্চে আগুন লাগলে স্বামী-স্ত্রী পানিতে লাফিয়ে পরেন। এতে হাবিব আহত হন। তাকে সেখান থেকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতেই রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার দিবাগত রাতে পৌনে ১২টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

শনিবার সকালে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্তলাল সেন জানান, ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে ‘এমভি অভিযান-১০’ লঞ্চে অগ্নিকান্ডে দগ্ধদের মধ্যে ২১ জনকে ঢাকার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে আনা হয়। তাদের মধ্যে একজন মারা যান। চিকিৎসা নিয়ে ফিরে গেছেন চারজন। একজনকে ক্যাজুলিটি বিভাগে স্থানান্তর করা হয়েছে। বর্তমানে ১৫ জন চিকিৎসাধীন আছেন।

sarkar furniture Ad
Green House Ad