চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে : তথ্য সচিব

বাংলারচিঠিডটকম ডেস্ক ❑ চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণের উপর গুরুত্বারোপ করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মকবুল হোসেন।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার চতুর্থ শিল্প বিপ্লব বাস্তবায়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সরকারের এ প্রচেষ্টায় আমাদের সকলকে সম্পৃক্ত হতে হবে। এখন থেকেই যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণের মাধ্যমে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে।

তথ্যসচিব ১২ ডিসেম্বর ঢাকার সার্কিট হাউস রোডে তথ্য ভবন সম্মেলন কক্ষে ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় করণীয়’ শীর্ষক এক সেমিনারে এই অভিমত ব্যক্ত করেন। চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর দিনব্যাপী এ সেমিনারের আয়োজন করে। অধিদপ্তরের মহাপরিচালক স. ম. গোলাম কিবরিয়ার পরিচালনায় এ সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সরকারের সাবেক অতিরিক্ত সচিব মো. রফিকুজ্জামান।

তথ্য ও সম্প্রচার সচিব বলেন, চতুর্থ শিল্প বিপ্লব মূলত জ্ঞানভিত্তিক। জ্ঞানভিত্তিক এ শিল্প বিপ্লবে প্রাকৃতিক সম্পদের চেয়ে দক্ষ মানবসম্পদ বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তাই কারিগরি শিক্ষার ওপর বেশি গুরুত্বারোপ করতে হবে। এজন্য শিক্ষা ব্যবস্থাকে এমনভাবে সাজাতে হবে যাতে শিক্ষার্থীদের মধ্যে এ দক্ষতা স্বয়ংক্রিয়ভাবে সঞ্চারিত হয়।

সেমিনারের অন্যতম আলোচক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তড়িৎ ও ইলেক্ট্রনিক কৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. এস এম মোস্তফা আল মামুন বলেন, উন্নয়নের জন্য প্রযুক্তিগত উৎকর্ষতাকে অবশ্যই স্বাগত জানাতে হবে। তবে আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে তা কতটুকু যুক্তিযুক্ত বা বাস্তবসম্মত নীতিনির্ধারকদের সে বিষয়েও খেয়াল রাখতে হবে।

প্রবন্ধে বলা হয়, আগামী দুই দশকের মধ্যে মানবজাতির ৪৭ শতাংশ কাজ স্বয়ংক্রিয় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন যন্ত্রের মাধ্যমে হবে। ফলে শ্রমনির্ভর এবং অপেক্ষাকৃত কম দক্ষতা নির্ভর চাকরি বিলুপ্ত হলেও উচ্চ দক্ষতা নির্ভর যে নতুন কর্মবাজার সৃষ্টি হবে আমাদের তরুণ প্রজন্মকে তার জন্য প্রস্তুত করে তোলার এখনই সময়। বাংলাদেশের তরুণ জনশক্তিকে দক্ষ জনসম্পদে রূপান্তর করতে পারলে আমাদের দেশও উন্নত অর্থনীতির দেশে পরিণত হতে পারবে।

চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন।

sarkar furniture Ad
Green House Ad