‘ধন্যবাদ আবেদ ভাই’ শীর্ষক স্মরণসভা অনুষ্ঠিত

প্রয়াত স্যার ফজলে হাসান আবেদের স্মরণসভায় বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মোকলেছুর রহমান। ছবি : বাংলারচিঠিডটকম

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
বাংলারচিঠিডটকম

ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত স্যার ফজলে হাসান আবেদ স্মরণে জামালপুরে ‘ধন্যবাদ আবেদ ভাই’ শীর্ষক এক স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৭ জানুয়ারি বিকেলে জামালপুর শহরের লুইস ভিলেজ রিসোর্ট এন্ড পার্কের মিলনায়তনে ব্র্যাকের উদ্যোগে এ স্মরণসভার আয়োজন করা হয়।

ব্র্যাকের জামালপুর জেলা সমন্বয়কারী মুনির হোসেন খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মোকলেছুর রহমান। এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক রাজু আহমেদ, উন্নয়ন সংঘের নির্বাহী পরিচালক মো. রফিকুল ইসলাম মোল্লা, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের কনিষ্ঠ স্বাস্থ্যশিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনিছুর রহমান, বেসরকারি সংস্থা আইজলের নির্বাহী পরিচালক সাযযাদ আনসারী, জামালপুর জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি এম এ জলিল প্রমুখ। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন আয়শা আবেদ ফাউন্ডেশন জামালপুর কেন্দ্রের বিশেষজ্ঞ কর্মকর্তা শ্যামল কুমার দাস ও মেলান্দহের গ্রাম সমিতির সভানেত্রী মাজেদা বেগম। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ব্র্যাকের অতিদরিদ্র উন্নয়ন কর্মসূচির আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক কামরুন নাহার।

আলোচকরা বলেন, ফজলে হাসান আবেদ ছিলেন একজন দূরদর্শী চিন্তাশীল ও অতি মানবিক গুণসম্পন্ন মানুষ। অনন্য ও ব্যতিক্রমী সেবাদান করে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছেন। তিনি ছিলেন দরিদ্র মানুষের অতি আপনজন। কোনো কাজ হাতে নিলেই তিনি সবার আগে জানতে চাইতেন অসহায় দরিদ্র মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে তা কোনো কাজে দিবে কিনা। নারীর ক্ষমতায়ন ও দক্ষতা অর্জনের পেছনে তাঁর অনেক অবদান রয়েছে। সমাজের ধনী ও দরিদ্রের মধ্যে বৈষম্য দূর করে সবাইকে এক সাথে যুক্ত করতে পেরেছেন বলেই ব্র্যাক শুধু দেশেই নয়, সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়েছে। দেশের গণ্ডি ছেড়ে বিদেশে গেলেও তিনি এলাকার কথা ভুলেননি।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই ফজলে হাসান আবেদ স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। অনুষ্ঠানে ফজলে হাসান আবেদ ও ব্র্যাক সম্পর্কে ভিডিও প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন এবং রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশিত হয়। গত ২০ ডিসেম্বর স্যার ফজলে হাসান আবেদ ৮৩ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন।

sarkar furniture Ad
Green House Ad