ইসলামপুরে সুফল প্রকল্পের বন্যা বিপদসীমা সম্পর্কে আলোচনা সভা

ইসলামপুরে বন্যার বিপদসীমা সম্পর্কে পর্যালোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান। ছবি : বাংলারচিঠিডটকম

নিজস্ব প্রতিবেদক, জামালপুর
বাংলারচিঠিডটকম

জামালপুর জেলার বন্যা কবলিত মানুষের সক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে বন্যার বিপদাপন্নতা কমিয়ে আনার লক্ষ্যে ইসলামপুরে বন্যার বিপদসীমা সম্পর্কিত উপজেলা পর্যায়ে পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। ইসলামপুর উপজেলা পরিষদের মিলনায়তনে ২২ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইসলামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মিজানুর রহমান।

সভায় মুখ্য আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূইয়া। বিশেষ অতিথি হিসেবে রাইমস উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের কর্মসূচি প্রধান রায়হানুল হক খান। সভার আয়োজন করে ইসলামিক রিলিফ।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের জামালপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু সাঈদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোজিনা আক্তার চায়না, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. মেহেদী হাসান টিটু, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা চিকিৎসক এ এ এম আবু তাহের, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো. রুহুল আমিন, সাপধরী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জয়নাল আবেদীন, কুলকান্দী ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. ওবায়েদুল হক বাবু, চিনাডুলি ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মো. ফয়জুর রহমান, নোয়ারপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সচিব মো. ওমর ফারুক, সহকারী প্রকল্প কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ আবুল মুছা, নওশীন আরা ফেরদৌসী, রোকসানা খাতুন, এডমিন সহকারী মো. হাফিজ খান মজলিস প্রমুখ।

এছাড়াও সভায় ইউপি সদস্য, স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি, সংবাদকর্মী, স্থানীয় সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশের সুফল প্রকল্পের ব্যবস্থাপক শুশান্ত চন্দ্র দে রায়।

আলোচনায় প্রধান অতিথি ইউএনও মো. মিজানুর রহমান বন্যার বিপদসীমা পর্যালোচনা সভায় উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, বর্তমানে বাহাদুরাবাদ ঘাটে বন্যার বিপদসীমা নির্ধারণ করা হয়েছে সেই বিপদসীমা অতিক্রম করার পূর্বেই ইসলামপুরের বিভিন্ন এলাকা বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়। ফলে মানুষ এই বিপদসীমার মাধ্যমে পূর্ব প্রস্তুতি নিয়ে জীবনও সম্পদ রক্ষা করতে পারে না। এই অবস্থায় সভার মতামতের প্রেক্ষিতে বাহাদুরাবাদ ঘাটের বন্যার পানির পরিমাপের বিপদসীমা পুন:নির্ধারণ ও ইসলামপুরে পশ্চিম পার্শ্বে গুঠাইল বাজারে যমুনা নদীতে বন্যার পানি পরিমাপের জন্য গেজ স্টেশন স্থাপন এবং ইউনিয়ন ভিত্তিক বন্যার পূর্বাভাস প্রদানের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উপস্থিত পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং বন্যা পুর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের প্রতিনিধিদের আহ্বান জানান।

এছাড়া বন্যার পূর্বে সতর্কতা বা বন্যার পূর্বাভাস ডিজিটাল ডিসপ্লে বোর্ড ও মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ১০ দিন পূর্বে জানানোর এরকম আয়োজনের জন্য ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশ ও সুফল প্রকল্পের সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান। তিনি পানি উন্নয়ন বোর্ড, বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র, ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশ ও সুফল প্রকল্পের সংশ্লিষ্টদের উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সহযোগীতার আশ্বাস প্রদান করেন।

সভায় মুখ্য আলোচক বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া বন্যার পানি পরিমাপের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন এবং সভায় সুপারিশসমূহ বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস প্রদান করেন।

বিশেষ অতিথি রাইমস বাংলাদেশের কর্মসূচি প্রধান রায়হানুল হক খান ইউনিয়ন পর্যায়ে বন্যার বিপদসীমা সংক্রান্ত সভার সুপারিশসমূহ উপস্থাপন করেন ।

সভাপতি পানি উন্নয়ন বোর্ডের জামালপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু সাঈদ এ ধরনের আয়োজনের জন্য উপজেলা প্রশাসন ও আয়োজক সুফল প্রকল্পের সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান। তিনি সভায় বাহাদুরাবাদ ঘাটের বন্যার পানির পরিমাপের বিপদসীমা পুন:নির্ধারণের ও সভার মতামতের প্রেক্ষিতে ইসলামপুরের পশ্চিম পার্শ্বে গুঠাইল বাজারে যমুনা নদীতে বন্যার পানি পরিমাপের জন্য গেজ স্টেশন এবং ইউনিয়ন ভিত্তিক বন্যার পূর্বাভাস প্রদানের ও নদী তীরে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নির্মাণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দেন।

sarkar furniture Ad
Green House Ad