কবি ও বাচিক শিল্পীদের মিলনমেলায় জামালপুরে ‘এক বিকেলের কাব্যকথা’

‘এক বিকেলের কাব্যকথা’ অনুষ্ঠানে জামালপুর ও শেরপুরের কবি ও বাচিক শিল্পীরা। ছবি : বাংলারচিঠি ডটকম

নিজস্ব প্রতিবেদক, জামালপুর
বাংলারচিঠি ডটকম

কবি আর বাচিক শিল্পীদের মুখর পদচারণায় চৈত্রের বিকেলটাও যেন হয়ে উঠেছিল সোনালী। ২৯ মার্চ বিকেলে অনেকটা পথ পেরিয়ে জামালপুর ও শেরপুরের বিভিন্ন এলাকার কবি আর বাচিক শিল্পীরা জড়ো হয়েছিলেন জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার কাপাসহাটিয়া গ্রামে মুক্তিসংগ্রাম জাদুঘর প্রাঙ্গণে। তাদের আড্ডা,গল্প, কবিতা পাঠে নিরিবিলি জাদুঘর প্রাঙ্গণ রূপ নিয়েছিল প্রাণের মেলায়।

‘এক বিকেলের কাব্যকথা’ নামে চমৎকার এই আয়োজনটি করেছিল আবৃতি সংগঠন স্বরকলা জামালপুর।

মুক্তিসংগ্রাম জাদুঘরের ট্রাস্টি হিল্লোল সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় এই আয়োজনে যুক্ত হয়েছিলেন জামালপুর ও শেরপুরের কবি ও বাচিক শিল্পীরা। আমিনুল ইসলাম খানের প্রাণবন্ত সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে নিজেদের কবিতা পাঠ করেন কবি আলী জহির, কবি মুজাহিদ বিল্লাহ কামাল ফারুকী, ড. মোহাম্মদ হায়দার, ধ্রবজ্যোতি ঘোষ মুকুল, শেখ ফজল, আব্দুল হাই আল হাদী, শফিক জামান, এম এস আই সাগর, রবিন পারভেজ, রাজন্য রুহানী, বিপ্লব সরকার, তোফায়েল হোসেন, আরিফুল ইসলাম ও কামরুন নাহার শিখা। আবৃত্তি করেন কবি ও বাচিক শিল্পী ইহসানুল হক মঞ্জু, জয়শ্রী ঘোষ, হামিদুল হক দোদুল, জাকিরুল হক মিন্টু, হৃদয় লোহানী, এম আর আই রাসেল, ফারজানা ইসলাম, মিনহাজ উদ্দিন শপথ, মানসী ঘটক,পলাশ ঘটক, নিচই প্রমুখ।

কবিতা চর্চার মধ্য দিয়েই তরুণদের শুদ্ধ মনন গড়ে তুলতে হবে কবিতা আর আড্ডায় এমন অভিব্যক্তিই প্রকাশ করেন কবিরা।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন মেলান্দহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তামিম আল ইয়ামীন, বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম, মুক্তিসংগ্রাম জাদুঘরের পরিচালক উৎপল কান্তি ধর, মুক্তিসংগ্রাম জাদুঘরের ট্রাস্টি হিল্লোল সরকার প্রমুখ।

‘এক বিকেলের কাব্যকথা’ বিকেল থেকে সন্ধ্যা পেরিয়ে রাত ১০টা পর্যন্ত চলে। কবি ও বাচিক শিল্পীদের পরিবেশনা শেষে অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। জাদুঘর কর্তৃপক্ষের লুচি, সব্জি আর চায়ের আপ্যায়ন শেষে যখন ঘরে ফেরেন কবিরা তখনও এমন এক প্রাণের মেলায় ফের মিলিত হবার তাগিদ অনুভূত হয় তাদের বুকে।

sarkar furniture Ad
Green House Ad