চুক্তি ছাড়াই শেষ হলো ট্রাম্প-কিম বৈঠক

16বাংলারচিঠি ডটকম ডেস্ক : কোনো ধরনের চুক্তি বা অর্জন ছাড়াই শেষ হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং-উনের মধ্যকার দু’দিনব্যাপী ঐতিহাসিক বৈঠক।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা পুরোপুরি উঠিয়ে নিতে কিমের আহ্বান প্রত্যাখ্যান করায় বৈঠকটি ‘নিষ্ফল’ হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

পূর্ব এশিয়ার দেশ ভিয়েতনামের রাজধানী হ্যানয়ের বিলাসবহুল মেট্রোপোল হোটেলে দু’দিনব্যাপী (২৭ ও ২৮ ফেব্রুয়ারি) এ বৈঠকে দুই নেতার পক্ষ থেকে ‘পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের’ ঘোষণার প্রত্যাশা করা হচ্ছিল। কিন্তু ট্রাম্প-কিমের দ্বিতীয় ঐতিহাসিক এ বৈঠক শেষে হোয়াইট হাউস হতাশার কথাই জানিয়েছে।

বৈঠক শেষে ২৮ ফেব্রুয়ারি এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি সারাহ স্যান্ডার্স বলেন, দুই তো ‘খুবই ভালো ও গঠনমূলক বৈঠক’ করেছেন এবং তারা ‘বিপারমানবীকরণ ও অর্থনীতি-সংশ্লিষ্ট ধারণা এগিয়ে নিতে বিভিন্ন উপায় নিয়ে আলোচনা করেছেন।’

তবে তনি বলেন, ‘এবার কোনো চুক্তিতে উপনীত হওয়া যায়নি। তবে সংশ্লিষ্ট টিম ভবিষ্যতে পুনরায় বৈঠক হবে বলে আশা করছে।’

স্যান্ডার্সের বিবৃতির আগে ট্রাম্প সংবাদমাধ্যমকে বলেন, সবকিছু নিষেধাজ্ঞাকে ঘিরে আটকে গেছে। তারা নিজেদের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুরোপুরি তুলে নেওয়ার আবদার করেছে, যা আমরা পারিনি। আসলে কিছু সময় আসে যখন আপনাকে ফিরে আসতে হয়, এটা তেমনই এক সময়।

ট্রাম্প-কিমের বৈঠকের পর হোয়াইট হাউসের কর্মসূচি অনুযায়ী একটি যৌথ চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠান হওয়ার কথা থাকলেও তা ভেস্তে যায়। পরে সাংবাদিকদের ট্রাম্প আপাতত তৃতীয় বৈঠকের কোনো পরিকল্পনা নেই বলে জানান।এর আগে বুধবার প্রথম দিনের বৈঠক শেষে একসঙ্গে নৈশভোজ সারেন ট্রাম্প ও কিম। সেই অনুষ্ঠানে তারা আলোচনার সারসংক্ষেপ তুলে ধরেন। তখন দু’জনকেই উৎফুল্ল দেখা যায়।

ট্রাম্প ওই অনুষ্ঠানে বলেন, যদিও সমালোচকরা বলছেন আমাদের আলোচনা ধীর গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। তবে এই গতিতে আমি খুব সন্তুষ্ট।

বৈঠক শুরুর আগে ট্রাম্প বলেন, আলোচনার গতিশীলতা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ নয়। এটি অবশ্যই প্রশংসনীয় যে সাম্প্রতিক সময়ে উত্তর কো1816রিয়া কোনো ধরনের পারমাণবিক রকেট, মিসাইল কিংবা এই জাতীয় কিছুর পরীক্ষা চালায়নি।

ট্রাম্প এই সম্মেলন থেকে বড় ধরনের কিছু প্রত্যাশা না করার কথা ব্যক্ত করে সাংবাদিকদের বলেন, উত্তর কোরিয়ার নিরস্ত্রীকরণ চুক্তির ব্যাপারে তার ‘কোন তাড়া নেই।’ তিনি বলেন, এর সুফল পেতে সময় লাগবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট আরো বলেন, ‘দেশটির নিরস্ত্রীকরণের ব্যাপারে সবদিক বিবেচনা করে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের কোন তাড়া নেই। আমরা সঠিক চুক্তিটিই করতে চাই।’

২০১৭ সালে থেকে কোনো ধরনের পারমাণবিক কিংবা আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালায়নি উত্তর কোরিয়া।

এর আগে ২০১৮ সালের জুন মাসে সিঙ্গাপুরে প্রথমবার বৈঠক করেছিলেন ট্রাম্প ও কিম। সিঙ্গাপুরের ওই সম্মেলনে কোরীয় উপদ্বীপের নিরস্ত্রীকরণের কাজ এগিয়ে নিতে কাজ করতে তারা একটি অস্পষ্ট চুক্তি স্বাক্ষর করেন।

সে বৈঠকের পর থেকেই দু’দেশের সম্পর্কে উন্নতি দেখা যায়। এই দু’দেশের সম্পর্কের উন্নতি হলে পূর্ব এশিয়াসহ বিশ্বের বহুদেশই সুফল ভোগ করবে বলে প্রত্যাশা করা হয়।
সূত্র : বাসস

Views 20 ফেসবুকে শেয়ার করুন!
sarkar furniture Ad
Green House Ad