শেরপুরে ভাতিজিকে ধর্ষণের অভিযোগে চাচা গ্রেপ্তার

সুজন সেন, নিজস্ব প্রতিবেদক, শেরপুর
বাংলারচিঠি ডটকম

শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলায় ভাতিজিকে (আপন জেঠাতো ভাইয়ের মেয়ে) ধর্ষণের অভিযোগে চাচা জিয়ারুল ইসলামকে (২৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ৫ জানুয়ারি বিকেলে ওই ধর্ষককে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এর আগে ৪ জানুয়ারি সন্ধ্যায় মেয়েটির আপন চাচা সামিউল ইসলাম বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর ওইদিন রাতেই গ্রেপ্তার হয় ধর্ষক। জিয়ারুল উপজেলার ঘাগড়া কামারপাড়া গ্রামের আব্দুল মুন্নাফের ছেলে।

থানা পুলিশ ও বাদী সূত্রে জানা গেছে, গত ৩১ ডিসেম্বর সকালে মেয়েটি তার জেঠি আসিয়া খাতুনকে নাস্তা খাওয়ার জন্যে ডাকতে তার ঘরে যায়। পরে জেঠিকে ঘরে না পেয়ে ফিরে আসার সময় জিয়ারুল মেয়েটির মুখ চেপে ধরে জোর করে ওই ঘরেই ধর্ষণ করে। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয়ভাবে আপোষ-মিমাংসার চেষ্টা চলে। কিন্তু অপোষ-মিমাংসা না হওয়ায় এ ঘটনায় মেয়েটির চাচা পোশাক শ্রমিক সামিউল বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন।

এটি একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা এমনটা উল্লেখ করে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার বিশ্বাস বলেন, এ ঘটনায় সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগে জিয়ারুলকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ছাড়া ধর্ষণের স্বীকার মেয়েটির ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ধর্ষণের স্বীকার মেয়েটি স্থানীয় ঘাঘড়া কামারপাড়া মাদরাসার ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থী। তার বাবা মারা যায় ১০ বছর আগে। এর ঠিক এক বছর পরই তার মায়ের বিয়ে হয় অন্যত্র। চাচা সামিউল ইসলামের বাড়িতে থেকেই সে পড়াশোনা করছিল।

সর্বশেষ
sarkar furniture Ad
Green House Ad