সারাদেশে শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু

বাংলারচিঠি ডটকম ডেস্ক॥
ঢাক-ঢোল, কাঁসর ও শঙ্খের শব্দ শিহরণের মধ্য দিয়ে ১৫ অক্টোবর থেকে সারাদেশে শুরু হয়েছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা।

মহাষষ্ঠী পূজার মধ্যদিয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গা পূজা শুরু হল। দুর্গাষষ্ঠীর মধ্য দিয়েই দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

বিশুদ্ধ পঞ্জিকা মতে ১৯ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হবে পাঁচ দিনব্যাপী এ উৎসবের। এর আগে ১৪ অক্টোবর দেবীর বোধন অনুষ্ঠিত হয়।

সারাদেশে এখন বইছে উৎসবের আমেজ। দুর্গতি নাশিনী দেবী দুর্গার আগমনে উচ্ছ্বসিত ভক্তকুল। দেবীকে আসন, বস্ত্র, নৈবেদ্য, স্নানীয়, পুষ্পমাল্য, চন্দন, ধূপ ও দীপ জ্বালিয়ে পূজা-অর্চণার মাধ্যমে মা দুর্গার প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন ভক্তরা।

ষষ্ঠী পূজা উপলক্ষে পূজামন্ডপে ভক্তিমূলক গান, রামায়ণ পালা, আরতিসহ নানা অনুষ্ঠান হয়।

জগতের মঙ্গল কামনায় দেবী দুর্গা এবার ঘোটক (ঘোড়ায়) চড়ে কৈলাশ থেকে মর্ত্যালোকে (পৃথিবী) আসবেন। এতে প্রাকৃতিক বিপর্যয়, রোগ-শোক, হানাহানি, মারামারি বাড়বে। অন্যদিকে কৈলাশে (স্বর্গে) বিদায় নেবেন দোলায় চড়ে। যার ফলে জগতে মড়ক ব্যাধি এবং প্রাণহানির মত ঘটনা বাড়বে।

১৫ অক্টোবর সকাল ছয়টা ৩০ মিনিটে কল্পারম্ভ এবং বোধন আমন্ত্রণ ও অধিবাসের মধ্যদিয়ে উৎসবের প্রথম দিন ষষ্ঠী পূজা সম্পন্ন হয়। সকাল থেকে চন্ডিপাঠে মুখরিত ছিল সকল মণ্ডপ এলাকা।

উৎসবের দ্বিতীয় দিন ১৬ অক্টোবর মহাসপ্তমীর পূজা অনুষ্ঠিত হবে সকাল ছয়টায়। ১৭ অক্টোবর মহাঅস্টমীর পূজা আনুষ্ঠিত হবে সকাল নয়টায় এবং বেলা ১১টায় অনুষ্ঠিত হবে কুমারী পূজা। সন্ধিপূজা শুরু হবে দুপুর ১২টা ৫৬ মিনিটে। ১৮ অক্টোবর সকাল ছয়টা ৩০ মিনিটে শুরু হবে নবমী পূজা। পরদিন ১৯ অক্টোবর সকাল সাতটায় পূজা সমাপন ও দর্পণ বিসর্জন হবে সকাল আটটায়। পরে প্রতিমা বিসর্জন ও শান্তিজল গ্রহণের মধ্যদিয়ে শেষ হবে পাঁচ দিনব্যাপী এ উৎসবের।

সারাদেশে ৩১ হাজার ২৭২টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। আর রাজধানী ঢাকাতে এবার পূজা অনুষ্ঠিত হবে ২৩৪টি মণ্ডপে। গত বছর সারা দেশে ২৯ হাজার ৭৪টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়েছিল এবং রাজধানী ঢাকায় মণ্ডপের সংখ্যা ছিল ২২৫টি।
সূত্র : বাসস

সর্বশেষ
sarkar furniture Ad
Green House Ad