হাইকোর্টের আদেশে বকশীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচন স্থগিত

বকশীগঞ্জ প্রতিনিধি, জামালপুর ॥
হাইকোর্টের আদেশে জামালপুরের বকশীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন ৯০ দিনের জন্য স্থগিত ঘোষিত হয়েছে। নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী শাহিনা বেগমের রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে ২৮ মার্চ হাইকোর্ট এ আদেশ দিয়েছে। ২৯ মার্চ স্থগিত হওয়া একটি কেন্দ্রে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। হাইকোর্টের আদেশের প্রেক্ষিতে রিটার্নিং কর্মকর্তা ২৮ মার্চ রাত সাড়ে সাতটার দিকে একটি গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে ২৯ মার্চের ভোট গ্রহণ স্থগিতের কথা প্রচার করেছেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মনজুরুল আলম ২৮ মার্চ রাত সোয়া আটটায় বাংলারচিঠি ডটকমকে জানান, বকশীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী শাহীনা বেগমের দায়ের করা রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট ২৮ মার্চ বিকেলে আগামী ৯০ দিনের জন্য নির্বাচন স্থগিতাদেশ জারি করেছে। হাইকোর্টের আদেশের প্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশনের স্মারকপত্রাদেশ অনুযায়ী স্থগিত ১ নম্বর ওয়ার্ডের মালিরচর হাজিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র এলাকায় গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছি। তিনি আরও বলেন, ২৯ মার্চ ওই কেন্দ্রে নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছিল।

এদিকে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বী মেয়র প্রার্থী উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহিনা বেগম ২৮ মার্চ রাতে এই প্রতিবেদককে জানান, নির্বাচনের ভোট গ্রহণের দিন সাতটি ভোট কেন্দ্রে অনিয়মের অভিযোগ এনে স্থগিত কেন্দ্রটিসহ আটটি কেন্দ্রে পুনরায় ভোট গ্রহণের আবেদন জানিয়ে তিনি হাইকোর্টে এই রিট আবেদন করেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বকশীগঞ্জ পৌরসভা গঠিত হওয়ার পর প্রথম নির্বাচনের ভোট গ্রহণ করা হয় গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর। মোট ১২টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১১টি কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং নয়টি ওয়ার্ডের মধ্যে আটটি ওয়ার্ডের সাধারণ কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলররা নির্বাচিত হন। কিন্তু উপজেলার মালিরচর হাজিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নারী ভোট কেন্দ্রে ভোট চলাকালে জালভোট দেওয়া নিয়ে ব্যাপক গোলোযোগের কারণে দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওই কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করে দেন।

ওই ১১টি কেন্দ্রের বেসরকারি ফলাফলে দেখা যায়, মেয়র পদে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী জগ প্রতীকের প্রার্থী যুবলীগ নেতা মো. নজরুল ইসলাম পেয়েছেন ৮ হাজার ৫৯৯ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মো. ফখরুজ্জামান পেয়েছেন ৭ হাজার ৭০৫ ভোট এবং আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে ৫ হাজার ১৬০ ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহিনা বেগম। স্থগিত ওই একটি কেন্দ্রে ভোটার রয়েছে ১ হাজার ৫২৮ জন।