ভিকারুননিসার তিন শিক্ষক সাসপেন্ড

বাংলারচিঠি ডটকম ডেস্ক॥
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায ভিকারুননিসা নুন স্কুল এন্ড কলেজের তিন শিক্ষককে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করার জন্য স্কুলটির পরিচালনা কমিটিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি ৫ ডিসেম্বর সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়ে বলেন, অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায প্ররোচনাকারী হিসেবে প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ, শাখা প্রধান এবং এক শ্রেণিশিক্ষককে চিহ্নিত করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের করা তদন্ত কমিটি। ইতোমধ্যে ওই তিন শিক্ষককে সাসপেন্ড করতে স্কুলটির পরিচালনা কমিটিকে নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রণালয়ের কমিটি।

নাহিদ বলেন, “আমরা অভিযুক্ত তিনি শিক্ষকের এমপিও বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং পরিচালনা কমিটিকে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছি। অভিযুক্ত এই তিন শিক্ষক হলেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, শাখা প্রধান জিনাত আক্তার ও শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনা।

এর আগে মঙ্গলবার মেয়েকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগে অধ্যক্ষ-শিক্ষকসহ এই তিনজনকে আসামি করে পল্টন থানায় মামলা করেন অরিত্রীর বাবা দিলীপ অধিকারী।

ভিকারুননিসা নুন স্কুল এন্ড কলেজের নবম শ্রেণীর ছাত্রী অরিত্রী অধিকারী ৩ ডিসেম্বর রাজধানীর শান্তিনগরের বাসায় তার কক্ষে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়নায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

ছাত্রীটির বাবা দিলীপ অধিকারীর অভিযোগ, ২ ডিসেম্বর পরীক্ষা চলাকালে শিক্ষক অরিত্রীর কাছে মোবাইল ফোন পান। মোবাইলে নকল করেছে, এমন অভিযোগে অরিত্রীকে ৩ ডিসেম্বর তার মা-বাবাকে নিয়ে স্কুলে যেতে বলা হয়। তিনি স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে ওইদিন স্কুলে গেলে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ তাদের অপমান করে কক্ষ থেকে বের হয়ে যেতে এবং মেয়ের টিসি (ছাড়পত্র) নিয়ে যেতে বলেন। পরে বাসায় গিয়ে তিনি দেখেন, অরিত্রী তার কক্ষে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়নায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় ঝুলছে।
সূত্র : বাসস

sarkar furniture Ad
Green House Ad