সরকারি আশেক মাহমুদ ও জাহেদা সফির কলেজ পেল ২২৯ কোটি টাকা

প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম

আজিজুর রহমান ডল ॥
জামালপুর জেলায় একটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠাকরাসহ সারা জেলায় যোগাযোগ ব্যবস্থা ও বিভিন্ন ভৌত অবকাঠামো উন্নয়নে অভূতপূর্ব অগ্রযাত্রায় বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজমের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ধারাবাহিকতায় এবার জামালপুরের ঐতিহ্যবাহী দুটি উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়নে ২২৯ কোটি টাকার প্রকল্প একনেকে পাস হয়েছে। একনেকে পাস হওয়া দেশের নয়টি কলেজ উন্নয়ন প্রকল্পের মধ্যে জামালপুরের দুটি হলো জামালপুর সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজ ও জামালপুর সরকারি জাহেদা সফির মহিলা কলেজ।

রাজধানীর শেরে বাংলানগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে ৭ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত একনেকের সভায় জামালপুরের দুটি সরকারি কলেজের অবকাঠামো উন্নয়নে ২২৯ কোটি টাকার প্রকল্পের অনুমোদন পেয়েছে। এর মধ্যে জামালপুর সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজের জন্য ১০৩ কোটি টাকা এবং জামালপুর সরকারি জাহেদা সফির মহিলা কলেজের জন্য ১২৬ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

প্রকল্পভুক্ত জামালপুর আশেক মাহমুদ কলেজের অবকাঠামোগুলো হলো- একটি ছয়তলা একাডেমিক ভবন, ৫০০ আসন বিশিষ্ট পাঁচতলা একটি ছাত্রাবাস ও একটি ছাত্রীনিবাস, পাঁচতলা বিশিষ্ট শিক্ষক ডরমেটরি একটি, চারতলা বিশিষ্ট টিএসসি ভবন একটি, একটি ক্যান্টিন, পিডিবির বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র একটি, খেলার মাঠ ও দুটি প্রবেশ তোরণ নির্মাণসহ অন্যান্য অবকাঠামো নির্মাণ।

অপরদিকে জামালপুর সরকারি জাহেদা সফির মহিলা কলেজের একটি ছয়তলা একাডেমিক ভবন, একটি প্রশাসনিক ভবন, ৫০০ আসন বিশিষ্ট পাঁচতলা পৃথক দুটি ছাত্রীনিবাস, পাঁচতলা বিশিষ্ট শিক্ষক ডরমেটরি ও একটি অডিটরিয়াম নির্মাণসহ বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণ করা হবে।

একনেকে ১০৩ কোটি টাকার প্রকল্পটি পাস হওয়ায় একনেক সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজমের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে জামালপুর সরকারি আশেক মাহমুদ কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মুজাহিদ বিল্লাহ ফারুকী বলেছেন, বহুল প্রত্যাশিত এই প্রকল্পটি অনুমোদন পাওয়ায় কলেজের আধুনিক সুযোগসুবিধাবৃদ্ধির নতুন দ্বার উম্মোচিত হলো। দেশের সার্বিক উন্নয়নের পাশাপাশি শিক্ষাক্ষেত্রে শিক্ষাবান্ধব বর্তমান সরকারের ভূমিকা দেশকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাবে।

অপরদিকে জামালপুর সরকারি জাহেদা সফির মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর স্বদেশ চন্দ্র সাহাও তার কলেজের জন্য ১২৬ কোটি টাকার প্রকল্প একনেকে পাশ হওয়ায় একনেক সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজমের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

উল্লেখ, বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজমের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিয়ে ৬৪টি জেলার মধ্যে ১০টি উন্নত জেলার তালিকায় জামালপুর জেলাকে নিয়ে যাওয়ার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশের সাথে জামালপুর জেলার সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার অভূতপূর্ব উন্নয়ন হতে যাচ্ছে। সম্প্রতি বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজমের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ধারাবাহিকতায় পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের নাব্যতা ফিরিয়ে আনতে ৩ হাজার ১০০ কোটি টাকার একটি প্রকল্প এবং জেলার উন্নয়ন ও পরিচিতির তালিকায় যুক্ত হয়েছে ৩৭ কোটি টাকার পাট গবেষণা উপকেন্দ্র প্রকল্প। এছাড়া শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ, শেখ হাসিনা সাংস্কৃতিক পল্লী, শেখ হাসিনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজসহ বেশ কয়েকটি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমির প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, দুটি ইপিজেড, তিনটি বিদ্যুৎকেন্দ্র, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নামে একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, আধুনিক স্টেডিয়াম নির্মাণ, কামালপুর স্থলবন্দরের আধুনিকায়ন, তিনটি বাইপাস সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে। একনেকে অনুমোদন পেয়েছে ৬০ কোটি ৮১ লাখ ১৭ হাজার টাকার ‘ফ্যাশন ডিজাইন ইনস্টিটিউট প্রকল্প’। সব মিলিয়ে সারা জেলায় প্রায় ৫০ হাজার কোটি টাকার বিভিন্ন উন্নয়ন কাজ হচ্ছে। এসব উন্নয়ন প্রকল্পের মধ্যে অনেক প্রকল্পের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। কোনো কোনো প্রকল্প কাজ চলমান রয়েছে।

sarkar furniture Ad
Green House Ad